আপনি এবং ভবিষ্যৎ

future

লক্ষ্য ছাড়া জীবন যেন বৈঠাহীন নৌকার মতো। তবে তা কারো কথায় বশীভূত হয়ে কিংবা শুধুমাত্র কারো ইচ্ছাপূরণে সচেষ্ট হতে নয়, তা হতে হবে নিজের ইচ্ছায়। কেননা মনের তুষ্টিই সবচেয়ে বড়। কোনো কিছুর পেছনে দৌড়ানোর আগে তার প্রতি আগ্রহ আছে কিনা দেখে নেয়াটা শ্রেয়। লক্ষ্য নির্ধারণে তাই সাবধান হতে হবে। নতুবা পরবর্তীতে এর জন্যই দুঃখের শেষ থাকবে না। বর্তমানে অনেকেই ডাক্তার/ইঞ্জিনিয়ার হওয়ার লক্ষ্যে ছুটে থাকে। হয়তো অনেকেই তার লক্ষ্যে পৌঁছেও গেছে। তবে শেষে গিয়ে আবার অনেক এর মনে হয় এ বিষয় তার জন্য নয়! এর কারণ লক্ষ্য নির্ধারণের আগে তারা নিজেকে প্রশ্ন করে না। এমনকি অনেকে জানেই না তারা কি করতে চায়। ফলে দৌড়াতে দৌড়াতে তারা নিজেকেই হারিয়ে ফেলে। তখন আর কিছু করার থাকে না। নিজের প্রতি থেকে যায় এক সীমাহীন আক্রোশ। তাই নিজেকে হারিয়ে ফেলার আগে জেনে নিন কিছু প্রশ্নের উত্তরঃ

#আপনি কে?, আপনি কি হবেন?

আমি _______ আমি _______ হব। – আমি ছাত্র। আমি সবচেয়ে ভালো ছাত্র হব। কিংবা আপনি শিক্ষক, অথচ আপনার শিক্ষকতা ভাল লাগে না। আপনি গায়ক হতে চান। সেক্ষেত্রে শিক্ষকতা ছেড়ে আপনার উচিৎ হবে গান শেখা। গান শিখলেই আপনি সফলতা পাবেন তা না। তবে আপনার ইচ্ছাই আপনাকে সফল করে তুলবে। তাই নিজের ইচ্ছাকে প্রাধান্ন দিন। অন্য কারো কথায় না, নিজে ভেবে সিদ্ধান্ত নিন। দেখবেন সফলতা আসবেই।

#আপনার স্বপ্ন কি?

আমি সেরা ছাত্র হবো। কিংবা আপনি সেরা গায়ক হবেন। কিংবা আপনি বই লিখবেন/ভাল সাংবাদিক হবেন। যাই হতে চান/করতে চান তার একটা গন্তব্য ঠিক করুণ। নিজের স্বপ্নটা বুঝে নিন, যা পূরণ হলে আপনি ভাববেন আপনি সার্থক। এতে করে আপনার জীবনের লক্ষ্য নির্ধারণ সহজ হয়ে যাবে।

#সেজন্য কি কি করতে হবে?

সেরা ছাত্র হতে হলে অনেক অনেক পড়তে হবে। শুধু তাই নয়, সাথে থাকতে হবে অন্যান্য জ্ঞান ও নিজের সক্রিয় অংশগ্রহণ। তেমনি গায়ক হতে হলেও আপনাকে করতে হবে অনেক অনেক সাধনা। সাথে থাকতে হবে এই বিষয় এ বিস্তর জ্ঞান এবং আপনার ভয় পেলে হবে না। ক্ষেত্র বিশেষে আপনাকে ঝুঁকি নিতে হবে। এগিয়ে যাওয়ার সাহস থাকতে হবে। বার’কয়েক সফল না হলেও ধৈর্য হারানো যাবে না। তাতেই আপনার ভবিষ্যৎ হবে সুন্দর। তাই নিজের নিজের লক্ষ্যে পৌঁছাবার জন্য প্রয়োজনীয় কাজগুলো সম্পর্কে জেনে নিন।

#কতটুকু প্রয়োজন/ দক্ষতা অর্জন

যতটুকু পড়লে ভালো ছাত্র হওয়ার পথে এগিয়ে যাওয়া যাবে। বিষয়টা আপনার বুঝতে হবে। আপনি যদি গান সম্পর্কে কিছুই না জানেন তবে আগে সে সম্পর্কে জেনে নিতে হবে। তারপর পরের ধাপে যেতে হবে। তেমনি আপনি যদি মনে করেন আপনি বেশ জানেন, তবে তা প্রয়োগ করে দেখতে হবে। পারদর্শীদের অভিমত নিতে হবে। তাহলে আপনি বুঝতে পারবেন আপনার আর কতটা জানার প্রয়োজন এবং সেই সাথে মনে রাখতে হবে জানার শেষ নেই। তাই নিজের দক্ষতা অর্জনের পথকে গতিশীল রাখতে হবে।

#সম্পর্ক

বই এর সাথে সম্পর্ক থাকতে হবে। তেমনি আপনি গায়ক হতে হলে আপনার সুরের সাথে সম্পর্ক থাকতে হবে। কিংবা যিনি কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার হবেন, তার কম্পিউটার এর সাথে সম্পর্ক থাকতে হবে। এই সম্পর্ক আগে থেকে থাকবে এমনটা নয়, আপনাকে এই সম্পর্ক গড়ে তুলতে হবে। এক দিনে নয়, নিজের ইচ্ছাশক্তি-দক্ষতা-শ্রম এর মাধ্যমে ধীরে ধীরে আপনাকে এই সম্পর্ক শক্তিশালী করে গড়ে তুলতে হবে। নিজের উপর বিশ্বাস রাখতে হবে। এতে করে নিশ্চিত সফলতা অর্জন করবেন।

চেষ্টা করুণ এবং ভবিষ্যৎ গড়ে তুলুন।।

ইমেইলে নতুন লেখাগুলো পেতে সাইন আপ করুন 🙂

অচ্যুত সাহা জয়
 

"কখনো কোনো পাগলকে সাঁকো নাড়ানোর কথা বলতে হয় না। আমরা বলি না। আপনি বলেছেন। এর দায়দায়িত্ব কিন্তু আর আমার না - আপনার!"

চুলের সমস্যায় ভুগছেন? জেনে নিন মাথায় নতুন চুল গজানোর উপায়