মাথায় নতুন চুল গজানোর উপায়

ছোটবেলায় মাথাভর্তি এক গাদা চুল ছিলো আমার। আর চুল এতোই ঘন আর শক্ত ছিলো যে তেল জেল কোনটাতেই কোন কাজ হতোনা। ঘন আর শক্ত চুলের কারণে কখনোই চুল মনমতো করে আচড়াতে পারিনি আমি। তবে তা সত্ত্বেও চুল নিয়ে বেশ খুশি ছিলাম। বাড়ির সবাই বলতো আমার চুল আর সবার থেকে আলাদা, শক্ত ! কিন্তু সময় বদলায় সেই সাথে আমার চুলও 😉 , আগের সেই চুল আর নেই !

আমি চুল পড়া সমস্যায় ভুগছি অনেকদিন হলো। এই সেই করে অনেক কিছুই করা হয়ে গেছে এখন পর্যন্ত চুল পড়া বন্ধের জন্যে আর নতুন চুল গজানোর উপায় খোঁজার জন্যে। তবে খুব একটা যে সুফল পেয়েছি তা বলতে পারিনা, কারণ আমার চুল পড়ার কারণটা অনেকটাই বংশগত। তবে চুলের স্পা করানোর পরে আলহামদুলিল্লাহ্‌ ইদানিং আগের তুলনায় আমার চুল পড়া অনেকাংশেই কমে গেছে। স্পা করানোর পাশাপাশি চেষ্টা করছি পর্যাপ্ত পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ খাবার খেতে আর কিছু নিয়ম মেনে চলতে…

টিভিতে বিভিন্ন কোম্পানীর নানানরকম রঙচঙা অ্যাড দেখা যায়, যেখানে বলা হয় তাদের প্রোডাক্ট ব্যবহার করলেই মাথায় নতুন চুল গজাবে, চুল পড়া কমে যাবে ইত্যাদি ইত্যাদি ! এগুলো বেশিরভাগই যে শুধুমাত্র নামে চলে কাজের বেলায় নয়, সেটা আর বলার অপেক্ষা রাখেনা। এই পোস্টে একই সাথে কিছু নতুন চুল গজানোর উপায় আর চুল পড়া বন্ধের উপায় দেওয়া হবে।  আর চুল শক্ত ও মজবুত করার উপায় আমাদের লেখক দেবশ্রী আগেই দিয়ে গেছেন। আপনার যদি খুব চুল পড়ে থাকে তাহলে সম্পূর্ণ সমাধান না পেলেও ইনশাআল্লাহ্‌ খানিকটা উন্নতি হবে বলে আশা রাখছি।

স্বাভাবিক খাদ্যাভ্যাসে পরিবর্তন আনুন

খাবার

নতুন চুল গজানোর জন্যে আর চুল পড়া বন্ধের জন্যে আপনার স্বাভাবিক খাদ্যাভ্যাসের কিছুটা পরিবর্তন করতে হবে। যদিও এর অনেকগুলোই আপনি নিজের জান্তে-অজান্তে খাচ্ছেন, তবুও এখন থেকে আপনার খাদ্য তালিকায় এগুলো রাখার চেষ্টা করবেন।

পর্যাপ্ত পরিমাণে প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবার গ্রহণ করুন – আমাদের চুল মূলত কেরাটিন দিয়ে গঠিন। যা অ্যামিনো এসিড দিয়ে তৈরি এক ধরণের প্রোটিন। তাই নতুন চুল গজানোর জন্যে অবশ্যই আপনার শরীরকে পর্যাপ্ত অ্যামিনো এসিড সরবরাহ করতে হবে। ফলে আপনাকে যথেষ্ট প্রোটিন আছে এমন খাবারগুলো গ্রহণ করতে হবে। মাছ, মাংস, পনির, দুধ, ডিম এগুলো ভালো প্রোটিনের উৎস… আপনার খাদ্য তালিকায় প্রতিদিনই এগুলোর অন্তত একটি রাখার চেষ্টা করুন। আপনি ভেজিটেরিয়ান হলে সয়াবিন, মটরশুটি, কলা,  বাদাম ইত্যাদি খেতে পারেন। তবে নন-ভেজিটেরিয়ান খাবারে প্রোটিনের পরিমাণ তুলনামূলক বেশি। 🙂

পরিমিত আয়রন আর জিঙ্ক রাখুন খাবারের মধ্যে – আয়রন আর জিঙ্কের অভাব অস্বাস্থ্যকর চুলের কারণ হতে পারে। আয়রন আর জিঙ্ক আপনার মাথার কোষে অক্সিজেন পরিবহন করে নিতে সহায়তা করবে আর নতুন টিস্যু তৈরীতে এবং ক্ষয়রোধে সহায়তা করবে। পরিমিত পরিমাণে আয়রন আর জিঙ্ক নতুন এবং দ্রুত চুল গজানোর জন্যে সহায়ক ভূমিকা পালন করতে পারে। মটরশুটি, বাদাম, প্রাণীর কলিজা, মাংস, দুধে আপনার প্রয়োজনীয় জিংক আর আয়রন পেয়ে যাবেন। এছাড়া কাচা মরিচও জিঙ্ক, আয়রন এর উৎস।

প্রয়োজনীয় ভিটামিন সি এর সরবরাহ নিশ্চিত করা – শরীরে যেন পর্যাপ্ত ভিটামিন সি এর সরবরাহ থাকে সেটা নিশ্চিত করতে হবে। রুক্ষ, শুষ্ক, আর দূর্বল চুল হওয়া থেকে মুক্তি দিবে পর্যাপ্ত ভিটামিন সি। কাচা মরিচে পর্যাপ্ত ভিটামিন সি আছে, শুনেছিলাম একজন মানুষের শরীরে একদিনে যতটুকু ভিটামিন সি দরকার তার সবটুকুই নাকি পাওয়া যাবে মোটামোটি আকারের একটি কাচা মরিচে। তাছাড়া পেয়ারা, লেবু, কমলা, আনারস, কামরাঙাও ভিটামিন সি এর উৎস।

কালোজিরা – কালোজিরা চুল পড়া বন্ধে এবং নতুন চুল গজানোর জন্যে সহায়ক। মাথায় কালোজিরার তেল ব্যবহার করা আর খাবারে কালোজিরা ব্যবহার আপনাকে স্বাস্থোজ্জল চুল দিতে পারে।

কালোজিরার আরো গুণাগুণ সম্পর্কে জানতে  Black Seed: Nature’s Miracle Remedy বইটি পড়ে দেখতে পারেন…

মৌসুমি ফল, শাকসবজিগুলো এড়িয়ে যাবেন না, এগুলো শরীরের জন্যে খুবই উপকারী। তাছাড়া মাছ, মাংস, ডিম, দুধ এগুলোও মাঝে মাঝে খাবারের তালিকায় রাখতে পারেন। আর হঠাত করে খাদ্যাভ্যাসে খুব বেশি পরিবর্তন না এনে, ধীরে ধীরে আনুন। এতে আপনার শরীর অভ্যস্ত হওয়ার সময় পাবে। আর খাদ্যাভ্যাস পরিবর্তনের ফলাফল আপনার চুলে পেতে বেশ দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করতে হতে পারে।

চুল পড়ার পিছের কারণ খুজে বের করুন

চুল পড়া

স্বাভাবিকভাবে চুল পড়া আর বিশেষ কোন কারণে চুল পড়ার মধ্যে পার্থক্য আছে। আর সেটাই খুজে বের করতে হবে। স্বাভাবিকভাবে একজন মানুষের ৭০-১০০টা পর্যন্ত চুল পড়তে পারে। আর এটা স্বাভাবিক। কিন্তু এর থেকে বেশি পড়লে সেটা অস্বাভাবিক হবে বৈকি। কিন্তু এই অস্বাভাবিকতার পিছে কি কাজ করছে সেটা খুজে বের করে সমাধান করে ফেলতে হবে।

মানসিক চাপ – প্রবল মানসিক চাপ চুল পড়ার বড় কারণ হতে পারে। আর সেই সাথে নতুন চুল গজানোর প্রতিবন্ধকতাও সৃষ্টি করতে পারে বটে ! নিজেকে যথাসম্ভব মানসিক চাপমুক্ত রাখার চেষ্টা করবেন। একটানা কাজ না করে, নিয়মিত বিরতিতে স্বাচ্ছন্দে কাজ করাটা ভালো। সপ্তাহে একদিন নিজেকে একটু মুক্ত বাতাসে মেলে ধরুন, গাছ-গাছালিপূর্ণ জায়গায় বেড়িয়ে আসুন। পরিবার পরিজনকে সময় দিন। দিনের একটা নির্দিষ্ট অংশে হালকা ব্যায়াম কিংবা সাইক্লিং ও মানসিক চাপ কপাতে সাহায্য করতে পারে  !

ওষুধ – এমনটা হওয়া খুবই স্বাভাবিক যে উচ্চ মাত্রার ওষুধ খাওয়ার ফলে চুল পড়ে যাচ্ছে। হয়তোবা আপনার চুল পড়ার পেছনে অন্যতম কালপ্রিট হতে পারে আপনার ওষুধ। যদি এমন কিছু হয়ে থাকে তাহলে ডাক্তারের সাথে আলোচনা সাপেক্ষে যদি ওষুধ পাল্টানো সম্ভব হয় তাহলে সেটা করে নেয়াই ভালো। আর ওষুধের কারণে চুল পড়ছে কিনা সেটা আপনার পক্ষে জানাটা হয়তো সম্ভব নয়। তাই ডাক্তারের সাথে আলাপ-আলোচনা করে নিতে পারেন যে ওষুধগুলো খেলে আপনার চুল পড়ার সম্ভাবনা থাকবে কিনা।

মাথার ত্বক – মাথার ত্বকের অসুস্থতাও চুল পড়ার কারণ হতে পারে। যদি এমন কিছু হয়ে থাকে তাহলে ভালো কোন ডাক্তারের শরণাপন্ন হতে হবে আপনাকে। তাছাড়া নিয়মিত ধুলাবালিপূর্ণ স্থানে থাকলে মাথার ত্বকে প্রচুর ময়লা জমাটাও স্বাভাবিক। যদি এমন হয় তাহলে সপ্তাহে অন্তত তিন দিন চুলে শ্যাম্পু করা উচিৎ, এর চেয়েও বেশি করলেও সমস্যা নেই। তবে চুলের সাথে মানানসই শ্যাম্পু ব্যবহার করাটা বুদ্ধিমানের কাজ হবে !

হরমোন – হরমোনের কারণেও মাথার চুল পড়ে থাকতে পারে। এক্ষেত্রেও ডাক্তারের শরণাপন্ন হওয়া ছাড়া উপায় নেই।

বংশগত – বংশগত কারণেও চুল পড়তে পারে। এমন কিছু হলে আপনার পক্ষে করার তেমন কিছু থাকবেনা। তবুও আপনি চেষ্টা করলে কিছুটা হলেও ইম্প্রুভ করতে পারেন।

স্টাইল – চুল পড়াকে বাড়িয়ে দিতে পারে এমন চুলের স্টাইল থাকলে সেটা পাল্টাতে হবে। ঘনঘন চুলে চিরুনী ব্যবহার করলে আর জেল ব্যবহার করলেও চুল পড়তে পারে। এমন কোন হেয়ার স্টাইল রাখা উচিৎ না যার ফলে চুল পড়তে পারে।

উপরের প্যাচাল অনুযায়ী নতুন চুল গজাইবো ক্যামনে?

উপরে ম্যালা প্যাচাল পড়ার পর এখন এটা মনে হওয়া স্বাভাবিক যে এর ফলে নতুন চুল আসলে কিভাবে গজাবে? আসলে স্বাভাবিক ভাবে যে পরিমাণ চুল পড়ে আমাদের ঠিক তার কাছাকাছি পরিমান চুল গজায় প্রতিদিনই। কিন্তু কোন কারণে যদি চুল পড়ার হার গজানোর হার থেকে বেড়ে যায় তাহলেই সেটাকে মূলত চুল পড়া বলা হয়। কিন্তু যদি অতিরিক্ত চুল পড়া বন্ধ করা যায় তাহলে নতুন চুলগুলো স্বাভাবিকভাবে বেড়ে উঠতে পারবে এবং চুলের ভারসাম্য বজায় থাকবে। উপরে উল্লেখিত বিষয়গুলো গুরুত্বের সাথে খেয়াল রাখার অনুরোধ রইলো। এতে করে মাথার চুল পড়া কমে চুলের স্বাভাবিক গজানোকে বাধাহীন করে তুলবে। 🙂

ইমেইলে নতুন লেখাগুলো পেতে সাইন আপ করুন 🙂

কেমন লাগলো পোস্ট? আপনার মতামত জানান

  1. ভাই রে কেন আশা দেও । আমি হতাশ পুরাই , করার কিছু নাই , অস্বাভাবিকভাবে যেগুলো যাবে সেগুলোরে ফিরাইয়া আনতে পারব না। :/

  2. আমার চুল আগে খুব ঘন ছিল। anmol নামে বাজারের একটা মেহেদী দেয়ার পর থেকে আমার চুল হঠাত পড়ে যেতে থাকে (সাথে কিছুটা মানসিক চাপ ছিল), এরপর সেটা বন্ধ করে গাছের মেহেদী দেই তাতে চুল পড়া বন্ধ হয়ে গেছে কিন্তু চুল আগের থেকে পাতলা হয়ে গেছে। এখন কিভাবে আগের চুল ফিরে পাব, খুব দুশ্চিন্তায় আছি । হেল্প প্লিজ।

    • পরিমিত পানি খান, সপ্তাহে একদিন দুইদিন শ্যাম্পু করুন। কয়েক টুকরা অ্যালোভেরা ও ২ থেকে ৩ চামচ মধু মিশিয়ে মাথার ত্বকে ম্যাসাজ করুন। ২০ মিনিট পর শ্যাম্পু করে ফেলুন। প্রতি সপ্তাহে একদিন করে ব্যবহার করুন। প্রতিদিন সকালে এক চামচ কালোজিরার নির্জাস মধুর সাথে মিষিয়ে খেয়ে নিন। উপকার পাবেন

  3. Pingback: মজবুত ও স্বাস্থ্যজ্জ্বল চুল লাভের উপায় ! - পিপীলিকা বাংলা ব্লগ

  4. Pingback: চুল পড়া বন্ধের ৬ উপায় !

  5. আমার মাথার মাঝখানে দিকে চুল বেশি পড়ে যাচ্ছে। তবে মাথার পেছনের দিকে চুল ঠিক আছে, পেছনের দিকে যে পরিমান চুল আছে সেই পরিমান চুল সামনের দিকে নেই। এটার কারণ কি? আমি পেঁয়াজের রস ব্যবহার করছি কিন্তু তাতে চুল আরোও উঠে যাচ্ছে। কি করলে আমার মাথার চুল নতুন করে গজাবে আর ঘন হবে। লেজার থেরাপি করলে খরচ কি পরিমান হবে। এটাতে কোন ক্ষতি হয় কিনা? প্লিজ আমাকে বলুন?