বাসা থেকে বের হবার পূর্বে করণীয়

অনেক দূর গিয়ে দেখেন কাজের জিনিসটা ফেলে এসেছেন। কি বিরক্তই না হবেন! এই ভাবতে ভাবতে যদি মনে পড়ে আজ বন্ধ। তবে আর কি? এর চেয়ে খারাপ আরকি হবে? এবার পৌঁছে আপনি পুরোই হতভম্ব। মানিব্যাগটা রেখে এসেছেন কিংবা পার্সে টাকা নেই! এভাবে কোনো না কোনো ক্ষেত্রে বিব্রত হয়েছেন অনেকেই। তবে কপাল চাপড়ে কোনো লাভ নেই। কেননা আমরা কোথাও যাবার আগে ঠিক ভেবে নেই না। যার ফলে পোহাতে হয় নানা সমস্যা। অথচ কিছুটা সাবধান হলেই এর থেকে মুক্তি। তাই নিজেদের সতর্ক হওয়া উচিৎ। বাসা থেকে বের হবার আগে যা যা ভেবে নিবেনঃ 

thinking

কোথায় যাবো?

বের হবার আগেই ভেবে নিন যাবেন কোথায়। যেখানেই যান তার জন্য প্রয়োজন হালকা প্রস্তুতি।

 

দূরত্ব কতটা?!?

যাচ্ছি কোথায়? আগেই ভেবে নেওয়া ভালো যে আপনি কতদূর যাবেন।  কেননা দূরে গেলে তার প্রস্তুতিও কিছুটা ভিন্ন হবে। আর কাছে কোথাও গেলে তার জন্যও একটা প্রস্তুতি দরকার। তাই বাসা থেকে বের হওয়ার পূর্বেই তা ঠিক করে নিন।

 

চিনি কি?

এবার ভেবে নিন আপনি যেখানে যাবেন সেখানে পৌঁছাবার  রাস্তা চেনেন কিনা। যদি না জেনে থাকেন তবে কারো কাছে জেনে নিন। কিংবা নিজেই খুঁজে বের করুন গুগল ম্যাপস এর সাহায্যে। আর যদি আপনি চিনে থাকেন তবে ভেবে নিন সেখানে যাবার আর কোনো পথ আছে কিনা। যদি থেকে থাকে তবে ঠিক করুন কোন পথটা আপনার জন্য সুবিধাজনক। অর্থাৎ যে পথে গেলে আপনার সময়, খরচ এবং নিরাপত্তায় ব্যাঘাত হবে না, সে পথটি বেছে নিন।

 

কিভাবে যাবো?

যারা নিজস্ব গাড়ি নিয়ে বের হবেন তারা একবার দেখে নেবেন আপনার বাহনটি ঠিক আছে কিনা। এছাড়া অন্য বাহনগুলোও চলার জন্য খারাপ না। বাস এর কথা ভেবে থাকলে দেখে নিন সময় হবে কিনা। কেননা আপনার কাঙ্ক্ষিত বাস আসতে কিছুটা দেরি হতে পারে। এবার ঠিক করে নিন কোথা থেকে উঠবেন, সেখানে আপনার গন্তব্যে পৌঁছাবার বাসটি আসবে কিনা। লোকাল/সিটিং – এসব এর কথাও ভেবে নিতে পারেন। সময় ও ভাংতি সঙ্গে নিয়ে বের হওয়া ভালো।

রিক্সা নিয়েও যেতে পারেন কাঙ্ক্ষিত উদ্দেশ্যে। সেক্ষেত্রে কাছেই পেয়ে যাবেন আপনার বাহনটি। তবে খেয়াল রাখবেন আপনি যেখানে যাবেন সেখানে রিক্সা প্রবেশ নিষেধ কিনা।

হেঁটে যেতে পারেন। শুধু ডায়বেটিস হলেই কিংবা মেদ কমানোর জন্যই হাঁটবেন তা নয়। প্রতিদিন কিছুটা হাঁটা আপনার স্বাস্থ্যের জন্য মঙ্গল।

এছাড়াও আপনার যদি দিচক্র-যান (সাইকেল) থেকে থাকে তবে তা নিয়ে বের হয়ে যেতে পারেন নিশ্চিন্তে।

 

কেন যাবো?

এবার ভেবে নিন যেখানে যাবেন সেখানে যাবার উদ্দেশ্য কি। যদি ঘোরার উদ্দেশ্য না থেকে থাকে তবে দেখে নিন যা যা লাগবে নিয়েছেন কিনা। হয়তো আপনার কোনো ফাইল নিতে হবে কিংবা কারো রাখা জিনিস।

 

টাকা নিয়েছি?

নিচে হেঁটে আসার উদ্দেশ্যে বের হলেও কিছু টাকা সঙ্গে রেখে বের হওয়া ভালো। কেননা আপনি জানেন না কখন তা কাজে লেগে যেতে পারে। আর দূরে যাবার ইচ্ছে থাকলে নিয়ে নিন প্রয়োজনীয় অর্থ।

 

বন্ধ না তো?

বন্ধুর বাড়িও বন্ধ থাকতে পারে। ভালো হয় আপনি যদি একটা ফোন করে যান। চমক দেবার ইচ্ছে থাকলে আলাদা কথা। এছাড়া যদি মার্কেট/কাজের ক্ষেত্রে বের হন তবে দেখে নিন সপ্তাহের এই দিনটাতে তা খোলা থাকবে কিনা।

 

দরকারি কিছু?

মোবাইল, মানিব্যাগ/পার্স সঙ্গে নিয়েছেন কিনা দেখে নিন। একবার ভেবে নিন আর কিছু নিতে হবে কিনা/কিছু নেবার ছিল কিনা।

 

যাবার পর?

সেখানে যাবার পর আর কোনো কাজ আছে কিনা দেখে নিন। অর্থাৎ আপনার কখন ফিরতে হবে কিংবা সেখান থেকে অন্য কোথাও যেতে হবে কিনা।

 

সব ঠিক?

আপনি যাবার জন্য তৈরি কিনা তা ভেবে নিন। বাসায় কেউ আসবার কথা/আপনার অন্য কোথাও যাবার কথা ছিল কিনা ভেবে নিয়ে বের হন। যাবার সময় চাবি নিতে,ঘর লাগাতে, পানি এবং ঘরের বৈদ্যুতিক সংযোগগুলো বন্ধ করতে ভুলবেন না।

 

এছাড়াও প্রতিদিনের কাজের একটা তালিকা করে রাখতে পারেন। আপনার যাত্রা শুভ হোক সে উদ্দেশ্যেই এবারের লেখা।  আপনি ভালো থাকুন তাই পিপীলিকার প্রচেষ্টা। পরবর্তীতে দূরে যাবার আগের প্রস্তুতিগুলো নিয়ে থাকবে সতর্কতা। এবারের জন্য এততুকুই।

ইমেইলে নতুন লেখাগুলো পেতে সাইন আপ করুন 🙂

অচ্যুত সাহা জয়
 

"কখনো কোনো পাগলকে সাঁকো নাড়ানোর কথা বলতে হয় না। আমরা বলি না। আপনি বলেছেন। এর দায়দায়িত্ব কিন্তু আর আমার না - আপনার!"

চুলের সমস্যায় ভুগছেন? জেনে নিন মাথায় নতুন চুল গজানোর উপায়