ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সম্পর্কিত কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য !

প্রাচ্যের অক্সফোর্ড নামে খ্যাঁত আমাদের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। সম্প্রতি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে একটু খোঁজাখুঁজি করেও কিছু তথ্য যা দেশের বিভিন্ন প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় আসার যোগ্য তা খুঁজে পেলাম না। তাই নিজে থেকেই কালেক্ট করে সেগুলো এখানে তুলে ধরার চেষ্টা করবো। ভার্সিটি ভর্তি পরীক্ষা, ব্যাংক এর পরীক্ষা, বিসিএস সহ যেকোনো পরীক্ষার প্রিপারেশনের জন্যেই এগুলো জেনে রাখা ভালো। 🙂

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হয় কবে? – ১৯২১ সালের ১ জুলাই

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার জন্যে কোন কমিশন গঠন করা হয়েছিলো? – নাথান কমিশন

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় দিবস কবে? – ১ জুলাই

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শোক সিবস – ১৫ অক্টোবর

কালো দিবস – ২৩ আগস্ট Continue reading

লিঙ্ক থ্রি ব্রডব্যান্ড – রিভিউ

 

লিঙ্ক থ্রি বাংলাদেশের শীর্ষস্থানীয় ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার। কোয়ালিটি সার্ভিস দেয়ার মাধ্যমে তারা বেশ ভালোই নামডাক কামিয়েছে। দেশের প্রায় ৫০ টি ব্যাংককে সার্ভিস দিচ্ছে তারা ! তো সে হিসেবে বোঝাই যায় তারা কতটা ভালো সার্ভিস দিচ্ছে। 🙂

যখন প্রথম লিঙ্ক থ্রির ব্রডব্যান্ড কানেকশন নিতে চেয়েছিলাম, তখন অনেক খুঁজেও একটা রিভিউ পাইনি লিঙ্ক থ্রির। তাই সেই সময়েই ভেবেছিলাম যে লিঙ্ক থ্রি কে নিয়ে ছোটখাট একটা রিভিউ লেখে ফেলা যায় নিজের অভিজ্ঞতার উপর ভিত্তি করে। এলাকা ভেদে হয়তো সার্ভিসে কিছু তারতম্য থাকতে পারে। আমি পল্টন এলাকায় ব্যবহার করেছি, তাই আমি যেভাবে যেই সার্ভিস পেয়েছি ঠিক সেভাবেই তুলে ধরার চেষ্টা করবো। Continue reading

বাংলাদেশ ভারত সমুদ্রসীমা বিরোধ মামলার রায় !

মায়ানমারের সাথে সমুদ্রসীমা জয়ের পর বাংলাদেশ ভারতের সাথেও অভাবনীয় সমুদ্রসীমা জয় করে নিয়েছে ! এর পক্ষে-বিপক্ষে অনেক মতামত থাকলেও আপাত দৃষ্টিতে লাভ বাংলাদেশেরই হয়েছে। ৭ জুলাই নেদারল্যান্ডস এর দি হ্যাগ শহরে অবস্থিত পার্মানেন্ট কোর্ট অব আরবিট্রেশন (স্থায়ী সালিশী আদালত) কর্তৃক বাংলাদেশ ভারতের সমুদ্রসীমা বিরোধ মামলার রায় দেয়া হয়। ৭ জুলাই রায় দেয়া হলেও জনসম্মুখে রায়টি প্রকাশ করা হয় ৮ জুলাই, ২০১৪ সালে।

Continue reading

তিয়ানহে ২ : পৃথিবীর সবচেয়ে শক্তিশালী কম্পিউটার !

আচ্ছা, আপনার কম্পিউটার কতটা শক্তিশালী বলতে পারবেন? অনেক বেশি? সর্বোচ্চ কত শক্তিশালী কম্পিউটার আপনি দেখেছেন? সেটা কত দ্রুত কাজ করতে পারে? ভাবছেন কিসব আজগুবি প্রশ্ন করছি ? আমি-আপনি সচক্ষে যত দ্রুত আর শক্তিশালী কম্পিউটার দেখেছি তার থেকে বেশি শক্তিশালী সুপার কম্পিউটার তৈরি করেছেন চীন ! যার নাম দেয়া হয়েছে তিয়ানহে ২।

শক্তিশালী কম্পিউটার এটাই প্রথম নয়। অনেক কাল আগে থেকেই বিভিন্ন দেশের গবেষকরা চেষ্টা করছেন শক্তিশালী সুপার কম্পিউটার তৈরির। আর সেই ধারাবাহিকতায়ই তৈরি হয়েছে চীনের তিয়ানহে ২।

চীনের সান ইয়াত সেন বিশ্ববিদ্যালয়ে অবস্থিত এই দ্রুতগতির সুপারকম্পিউটার তৈরি করতে ১৩০০ বিজ্ঞানী এবং ইঞ্জিনিয়ার অক্লান্ত পরিশ্রম করেছেন। তিয়ানহে ২ এর সকল কার্যক্রম শেষ করে জনসম্মুখে আনার কথা ছিল ২০১৫ সালে, কিন্তু পরীক্ষামূলকভাবে ২০১৩ এর জুনেই একে জনসম্মুখে আনা হয়।

প্রায় ৩১ লক্ষ্য ২০ হাজার কোর সমন্বয়ে তৈরি হয়েছে তিয়ানহে ২। এর র‍্যাম কত জিবি হতে পারে, কোন ধারণা আছে? ১০,২৪০০০ গিগাবাইট হচ্ছে এই সুপারকম্পিউটারের র‍্যাম ! ভাবা যায় ! আমার কম্পিউটারে আছে মোটে ৮ জিবি র‍্যাম ! কোথায় ৮ জিবি আর কোথায় ১০,২৪০০০ জিবি ! Continue reading

আউটবাউন্ড লিংক কি এবং কেন?

আউটবাউন্ড লিংক মানে হচ্ছে এক ওয়েবসাইট থেকে অন্য ওয়েবসাইটকে লিংক দেয়া। এক্সটার্নাল লিংক হিসেবেও এটা পরিচিত। সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন সম্পর্কে নতুন জানতে শুরু করেছে কিংবা বর্তমান সার্চ ইঞ্জিন এর কার্যক্রম সম্পর্কে অবগত নয় তাদের অনেকেই মনে করে যে আউটবাউন্ড লিংক করলে তার ওয়েবসাইট থেকে লিংক জুস চলে যাবে, ফলস্বরূপ তার ওয়েবসাইট খারাপ র‍্যাঙ্ক করবে।

যারা এই ধরণের ধারণা নিজেদের মধ্যে রাখেন তারা অন্য কোন ওয়েবসাইটকে ভুল করেও কখনো লিংক করেন না। ভুলেও তাদের নাম উল্লেখ করেন না ওয়েবসাইটের কোথাও, পাছে তারা তাদের গুরুত্বপূর্ণ ভিজিটর হারিয়ে ফেলবেন এই ভেবে। সব কিছু নিজের ওয়েবসাইটের মধ্যেই সীমাবদ্ধ রাখতে চান। যারা এমনটা ভাবছেন তাদেরকে আমি খারাপ বলছিনা। কারণ অনেক এসইও এক্সপার্টও একসময় এই কাজগুলোকে সমর্থন দিতেন। কিন্তু বর্তমানে সময় বদলেছে। স্বার্থপরভাবে ওয়েবসাইট পরিচালনা করে নিজেরাই নিজের ক্ষতি করছি সেটা উপলব্ধি করার সময় এসেছে।আউটবাউন্ড লিংক
আমি বলছিনা যে সবসময়ই অন্য ওয়েবসাইটকে আউটবাউন্ড লিংক দিন। শুধুমাত্র যখন প্রয়োজন তখন দিন, তাতেই হয়ে যাবে। তো চলুন জানি আউটবাউন্ড লিংক দেয়ার উপকারিতা গুলো –

আউটবাউন্ড লিংক দেয়ার মাধ্যমে আপনি নিজেকেই আরও শক্তিশালী করছেন

আপনার খুব কাছের বন্ধু আলু আপনার কাছে কিছু জানতে আসলো, আপনি সেই বিষয়ে যতটুকু জানেন ততটুকু তাকে জানালেন। কিন্তু তারপরেও আলু আরও কিছু জানতে চায়। এখন আপনার আরেকজন বন্ধু আছে পটল, যে কিনা সেই বিষয় সম্পর্কে আপনার থেকে বেশি জানে। এখন আপনি যদি আলুকে বলেন পটলের কাছে যাওয়ার জন্যে তাহলে আপনি আপনার কাছের বন্ধুটির উপকার করলেন। ফলস্বরুপ আলু আপনার উপকারের কারণে আপনার প্রতি কৃতজ্ঞ থাকবে, পাশাপাশি পটলও আপনার প্রতি সন্তুষ্ট থাকবে।

কাছের বন্ধু আলুকে আপনার নিয়মিত পাঠক আর পটলকে অন্য একটি ওয়েবসাইট হিসেবে ধরে নিন। আপনার ব্লগে আপনি কোন বিষয়ে লিখেছেন, আর সেই লেখা আপনার পাঠকরা পড়ছে। লেখার বিশেষ অংশে সেই বিষয় সম্পর্কে আরও তথ্য পাওয়া যাবে এমন ওয়েবসাইটকে লিংক করে দিলে আপনার পাঠক সেই বিষয়ে আরও জানার মতো রিসোর্স পাচ্ছে। পাশাপাশি যেই আপনি লিংক দিলেন সেই ওয়েবসাইটও আপনার প্রতি কৃতজ্ঞ থাকবে। হয়তো তারাও আপনাকে কখনো একটা লিংক ব্যাক দিতে পারে 🙂

সার্চ ইঞ্জিন কে আপনার ওয়েবসাইট সম্পর্কে আরও ভালো ধারণা দিতে পারবেন

ধরে নেই আপনি ওয়াল্টন মোবাইল নিয়ে একটি ব্লগ তৈরি করলেন। ওয়াল্টন প্রিমো এক্স ৩ এর রিভিউ নিয়ে আপনার একটি ব্লগ পোস্টও আছে। এবার আপনি যদি সেই রিভিউ এ ওয়াল্টনের ওয়েবসাইটে প্রিমো এক্স ৩ পেইজটাকে লিংক করেন তাহলে সার্চ ইঞ্জিনের বুঝতে কিছুটা হলেও সুবিধা হবে যে আপনি আসলে ওয়াল্টনের সেই মোবাইলটা নিয়েই কিছু লিখেছেন। লিংক দেয়ার মাধ্যমে যে সার্চ ইঞ্জিন আপনার সম্পর্কে ধারনা পেয়ে যাবে এমন না, তবে কিছুটা হলেও ধারণা দিতে পারবেন একে।

আপনার লেখাকে আরও যুক্তিসঙ্গত করে তুলতে পারবেন

আপনি আপনার লেখায় কোন একটা মতামত পেশ করলেন। যদি আপনি সেই লেখার পক্ষে ভালো কোন যুক্তি দাড় করাতে পারেন তাহলে সেটি আরও বেশি গ্রহণযোগ্যতা পাবে পাঠক সমাজে। আপনি কোন বৈজ্ঞানিক গবেষণা সম্পর্কে লেখার সময় যদি সম্ভব হয় সেই গবেষণার লিংক টা দিয়ে দিন, সাম্প্রতিক সময়ের কোন ঘটনা সম্পর্কে লেখার সময়ে সেই ঘটনা সম্বন্ধে কোন খবর প্রকাশ হয়ে থাকলে সেটাকে লিংক করে দিতে পারেন। কোন বিশেষ বিষয় সম্পর্কে লেখার সময় সেই বিষয়ে তথ্যবহুল কোন ব্লগ বা ওয়েবসাইট থাকলে সেটাকে লিংক করে দিন। তাহলে আপনার লেখার গ্রহণযোগ্যতা আরও বাড়বে।

আপনার ওয়েবসাইটকে কিছুটা প্রাণ দিবে লিংক

ইন্টার্নাল লিংক আর এক্সটার্নাল লিংক আপনার ওয়েবসাইটের যেকোনো লেখাকেই প্রাণ দিতে সক্ষম। লিংকবিহীন একটি পোস্ট দেখতে অনেকটাই ডিকশনারির মতো লাগে, যেখানে কোন তথ্যের উৎস সম্পর্কে কোন ধারণা দেয়া হয়না পাঠককে :p । তাই লেখায় প্রয়োজনীয় ছবি, ভিডিও, লিংক ইত্যাদি ব্যবহার করে লেখায় প্রাণ দিন।

আপনি কি আউটবাউন্ড লিংক দেয়ার পক্ষে না বিপক্ষে? আপনার উত্তরের স্বপক্ষে আপনার যুক্তি কি?