2

স্যামসাং গ্যালাক্সি ওয়াই ডুয়োস

বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে সবচেয়ে কম মূল্যে নামকরা ব্র্যান্ড এর অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোন হলো স্যামসাং গ্যালাক্সি ওয়াই ডুয়োস। অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহারে যারা আগ্রহী অথচ অত্যধিক মূল্যের কারণে ভারী ভারী ফিচার সহ স্মার্টফোন ব্যবহার করতে পারেন না তাদের জন্যে দু’হাত প্রসারিত করে দিয়েছে স্যামসাং এর গ্যালাক্সি ওয়াই ডূয়োস। গ্রাহকের চাহিদা মোটামোটি বেশ ভালোভাবেই মিটিয়েছে।

স্যামসাং গ্যালাক্সি ওয়াই ডুয়োস

২০১১ এর ডিসেম্বরে শীঘ্রই বাজারে ছাড়ার ঘোষণা দেয়ার পর পরের বছর ফেব্রুয়ারিতে এটি বাজারে ছাড়ে স্যামসাং। বাজারে নামকরা ব্র্যান্ড এর মধ্যে সবচেয়ে কম মূল্যের ডুয়াল সিম অ্যান্ড্রয়েড হ্যাণ্ডসেট গ্যালাক্সি ওয়াই ডুয়োস। এটা ছাড়া বাজারে সিম্ফনী আর ওয়ালটনের ডুয়াল সিম অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোন থাকলেও স্যামসাং যেহেতু ভালো ব্র্যান্ড তাই এর উপরেই সাধারণ জনগণ আস্থা রাখেন। বাংলাদেশে এই সেটের ব্যবহারকারীর সংখ্যা নিতান্তই কম নয়।

গ্যালাক্সি ওয়াই ডুয়োস সম্পর্কে কিছু তথ্যঃ

১.গ্যালাক্সি ওয়াই ডূয়োস এর ওজন মাত্র ১০৯ গ্রাম, সমমানের অন্যান্য সেটগুলো থেকে যথেষ্ট হালকা।
২. ৩.১৪ ইঞ্চি এর মানানসই ডিস্প্লে।
৩.ডুয়াল সিম সাপোর্ট, ডুয়াল স্ট্যান্ড বায়
৪.৩.১৫ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা আছে, প্রয়োজন মোটামোটি চালানোর মতো, তবে ফ্রন্ট ক্যামেরা নেই, থ্রিজি সুবিধা থাকলেও ভিডিও কল করার ক্ষেত্রে অপরপক্ষের কাউকে দেখতে হলে আয়না ছাড়া গতি নেই 😛
৫.অ্যান্ড্রয়েড ২.৩ (জিঞ্জারবার্ড) থাকছে এর অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে। আপাতত পরবর্তী কোন ভার্শনে আপগ্রেড করার কোন সুবিধা নেই।
৬.লোকেশন ট্র্যাকিং এর জন্যে জিপিএস সুবিধা আছে।
৭.১৩০০ mAh এর ব্যাটারি, স্মার্টফোনের জন্যে ততটা উল্লেখযোগ্য নয়,  খুব বেশি সময় চার্জ থাকেনা।
৮.ওয়াইফাই আছে, তাই ওয়াফাই ইন্যাবল্ড যেকোনো স্থান থেকে ওয়াইফাই ব্যবহার করার সুযোগ থাকছে।
৯.র‍্যাম থাকছে ২৯০ মেগাবাইট আর রম থাকছে ৫১২ মেগাবাইট।
১০.৩২ জিবি পর্যন্ত মেমোরি কার্ড সাপোর্ট করে।

ওয়াই ডুয়োস এর সবচেয়ে বড় সুবিধা এটা বেশ মজবুত সেট, আমার নিজের অভিজ্ঞতা থেকেই বলছি, কতবার যে কত রকমভাবে আছাড় খেয়েছে তার কোন ইয়ত্তা নেই, অথচ স্টিল সার্ভাইভিং, এখনো টিকে আছে। এর স্ক্রিণটাও তুলনামূলক বেশ মজবুত।

স্যামসাং এর এই স্মার্টফোনটির বাজার মূল্য অনুযায়ী যথেষ্ট ভালো সুবিধাদি রয়েছে, তবে র‍্যাম আরো বেশি থাকা দরকার ছিল আর ভিডিও কলিং এর সুবিধার্থে একটা ফ্রন্ট ক্যামেরা দরকার ছিল। যেহেতু বেশি দামে ভালো অ্যান্ড্রয়েড সেট কিনা অনেকেরই নাগালের বাহিরে তাই তাদের জন্যে অনেকটাই সুখের দোলা নিয়েই গত বছরের প্রথম দিকে বাজারে এসেছিলো স্যামসাং গ্যালাক্সি ওয়াই ডুয়োস।

 

ইমেইলে নতুন লেখাগুলো পেতে সাইন আপ করুন 🙂

আরিফুল ইসলাম পলাশ
 

বর্তমানে ঢাকার এক স্বনামধন্য কলেজে অধ্যয়নরত। লেখালেখির ঝোক ছোটবেলা থেকেই। ব্লগিং এ হাতেখড়ি সেই সপ্তম শ্রেণীতে। তখন ঠিকমতো টাইপ করতে পারতাম না, খুব কষ্ট হতো লিখতে। ধীরে ধীরে অভ্যস্ত হয়ে পড়েছি। এখন কিবোর্ড চলে বুলেটের মতো। তাই ইচ্ছা আছে বাংলায় তথ্যসমৃদ্ধ ইন্টারনেট দেখার। সেই ভেবেই পিপীলিকাতে লেখা। :) ফেসবুকে আমি