দেশে উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষার অন্যতম একটি বিদ্যাপীঠ ঢাকা সিটি কলেজ

উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষার কথা যখন আসে তখন সিটি কলেজের নামটি উপরের সারিতেই থাকে। তবে সিটি কলেযে উচ্চ মাধ্যমিকের পাশাপাশি জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে সম্মান কোর্সও চালু আছে।

ঢাকা সিটি কলেজ ঢাকা অন্যতম সেরা কলেজ। পরিকল্পিত পাঠ্যসূচী, প্রয়োজনীয় সকল আধুনিক শিক্ষা উপকরণের সমারোহ, বিষয়ভিত্তিক ল্যাব, লাইব্রেরী, শিক্ষা বান্ধব পরিবেশ, বিষয়ভিত্তিক যোগ্যতাসম্পন্ন শিক্ষক সব মিলিয়ে এই কলেজটি  উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষায় নিজের অবস্থান পাকা করে নিয়েছে।

সিটি কলেজ স্থাপনের ইতিহাস

উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষার জন্যে দেশের অন্যতম এই কলেজটি ১৯৫৭ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়।প্রতিষ্ঠা কালীন সময় এ কলেজটি নাইট কলেজ নামে ওয়েস্ট এন্ড হাই স্কুলে তাদের কার্যক্রম শুরু করে। বেশ কয়েক বছর পরে এই কলেজটি ওয়েস্ট এন্ড হাই স্কুল ছেড়ে দেয়।

৬০-এর দশকে কিছুদিন ঢাকা কলেজ ক্যাম্পাসে অবস্থানের সিটি কলেজ নামে ১৯৭০ সালে ডানমন্ডিতে নিজস্ব ক্যাম্পাসে তাদের কার্যক্রম আরম্ভ করে।  ওয়েস্ট এন্ড হাই স্কুলে সিটি কলেজ সীমিত পরিসরে যাত্রা শুরু করলেও  দীর্ঘ অর্ধশতাব্দী পেরিয়ে আজ বাংলাদেশের শিক্ষাজগতে  সুদৃঢ়  অবস্থান পৌঁছেছে। 

কলেজ অবকাঠামো

কলেজ গভর্নিং বডির প্রাক্তন চেয়ারম্যান সাবেক ঢাকা বিভাগীয় কমিশনার খানে আলম খানের অনুপ্রেরণা ও সহযোগিতায় ১৯৮৯ সালের মধ্যে দু’দুটো বৃহৎ বিল্ডিং নির্মিত হয়। ইতোমধ্যে আরেকটি বিল্ডিং-এর নির্মাণ কাজ শেষ হয়।

ইতোমধ্যে কলেজের নিজস্ব অর্থায়নে দু’টি জায়গা ক্রয় করা হয়। একটি কলেজ সংলগ্ন ১৩ কাঠা জায়গা যার উপর ৬-তলা ভবন নির্মাণ করা হয়েছে। অন্যটি ধানমন্ডি ৩/এ রোডে এক বিঘা জায়গা। যার ওপর ছয়তলা বিল্ডিং-এর নির্মাণ কাজ শেষ হয়েছে। 

কলেজে রয়েছে একটি লাইব্রেরী। শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত এ লাইব্রেরীতে কলেজ কোর্স সংশ্লিষ্ট অসংখ্য বইয়ের সংগ্রহ রয়েছে। লাইব্রেরী ব্যবহার করতে হলে ছাত্র-ছাত্রীদেরকে লাইব্রেরী কার্ড করতে হবে তবে বই বাসায় নেবার নিয়ম নেই। সকাল ৯ টা থেকে বিকাল ৫ টা পর্যন্ত লাইব্রেরীতে অবস্থান করা যায়। 

শিক্ষা ব্যবস্থা

সিটি কলেজ প্রথমে নৈশ কলেজ হিসেবে যাত্রা আরম্ভ করে । ১৯৯১ সালে নৈশ বিভাগ বাদ দিয়ে ছাত্রীদের জন্য শুরু হয় প্রভাতী শাখা। ১৯৯২ সালে অরাজনৈতিক ছাত্র-কাউন্সিল প্রবর্তনের মধ্য দিয়ে কলেজের শিক্ষা সহায়ক কার্যক্রম পরিচালনা শুরু হয়।

১৯৯৫-৯৬ শিক্ষাবর্ষে উচ্চতর কোর্স প্রবর্তনের মধ্য দিয়ে কলেজের অগ্রযাত্রায় যোগ হয় নতুন মাত্রা। তখন  ব্যবস্থাপনা, হিসাববিজ্ঞান ও মার্কেটিং বিষয়ে সম্মান ও এম.বি.এস. দিয়ে যাত্রা আরম্ভ করে।

পরবর্তিতে ১৯৯৭-৯৮ শিক্ষাবর্ষ হতে ইংরেজি বিষয়ে সম্মান, ১৯৯৮-’৯৯ শিক্ষা বর্ষ হতে বি.এসসি. (সম্মান) কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং, বি.বি.এ. এবং ২০০৩-’০৪ শিক্ষাবর্ষ হতে বি.বি.এস. (সম্মান) ফিন্যান্স এন্ড ব্যাংকিং কোর্সসমূহ চালু করা হয়। ২০১২-’১৩ শিক্ষাবর্ষে বিএসএস (সম্মান) অর্থনীতি বিষয়ে শিক্ষাদান শুরু হয়েছে। ২০০৪ সাল হতে নিয়মিত এম.বি.এ. কোর্সে শিক্ষাদান শুরু হয়। 

ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের অন্যতম এই কলেজটিতে বর্তমানে উচ্চ মাধ্যমিক শ্রেণীতে বিজ্ঞান, ব্যবসায় শিক্ষা ও মানবিক বিভাগে ভর্তি গ্রহণ করা। এছাড়া কলেজটিতে উচ্চ শিক্ষার অংশ হিসেবে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত বিবিএ, বিএসসি, অনার্স, সিএসই কোর্সে ছাত্র ছাত্রী ভর্তি করা হয়। 

ড্রেস কোড

দেশের অন্যান্য স্কুল কলেজের মত সিটি কলেজের রয়েছে আলাদা ড্রেসকোড।  উচ্চমাধ্যমিক অধ্যয়নরত ছাত্রদের জন্য নির্ধারিত পোশাক হচ্ছে সাদা শার্ট, কালো প্যান্ট এবং কালো সু। ছাত্রীদের জন্য নির্ধারিত পোশাক হচ্ছে সাদা সালোয়ার, কামিজ এবং ক্রস ওড়না।

দুঃখজনক ব্যাপার হল, উচ্চ শিক্ষায় অধ্যয়নরত ছাত্র-ছাত্রীদেরকে ড্রেস কোড মেনে চলতে হয়।  ছাত্রীদের পোশাক সাদা সালোয়ার, কামিজ, ওড়না। এছাড়া বিবিএ (প্রফেশনাল) অধ্যয়নরত ছাত্রদের নির্ধারিত পোশাক হচ্ছে একুয়া কালার শার্ট, কালো প্যান্ট, কালো সু এবং ছাত্রীদের সাদা সালোয়ার, কামিজ এবং ওড়না। 

দেশের পাবলিক কিংবা প্রাইভেট কিংবা উচ্চ শিক্ষা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের কোন ড্রেস কোড না থাকলেও সিটি কলেজ মেনে চলছে এক অদ্ভুত ড্রেস কোড। 

অবস্থান ও যোগাযোগ

যদি কেউ নিউমার্কেট থেকে আসে তাহলে সাইন্সল্যাবেটরীর ওভারব্রিজের পরে ডানমন্ডি ২ নাম্বার রোডের মাথায় নামলেই সিটি কলেজের সাইনবোর্ড দেখতে পাবে। আর যদি মিরপুর থেকে আসেন তাহলে সাইন্স ল্যাবরেটরীর আগে নেমে রাস্তা ক্রস করলে সিটি কলেজে পৌছে যাবেন। 

সড়ক : ০২, ধানমন্ডি আবাসিক এলাকা, ঢাকা ১২০৫।

ফোন: ০২-৮৬১০২৯৪, ০২-৯৬৭৪১১৫, ফ্যাক্স: ৯৬৭৫৫২৯

ইমেইল: infodccbd@gmail.com

ওয়েব সাইট: www.dhakacitycollege.edu.bd

ইমেইলে নতুন লেখাগুলো পেতে সাইন আপ করুন 🙂

মানজুরুল হক